দুস্থ পীড়িত অনাথ ও অবহেলিত শিশু,কিশোর,কিশোরী ও মহিলা দের সার্বিক উন্নয়নের লক্ষে এগিযে চলেছে CINI

sini
শিলিগুড়ি ,২ জানুয়ারী  CINI (চাইল্ড ইন নিড ইনস্টিটিউট)
শিশুদের নিরাপত্তার প্রয়োজনে এবং সমাজের বিভিন্ন প্রান্তে শোষিত নিপীড়িত ও অবহেলিত শিশুদের শিক্ষা স্বাস্থ্যের প্রতি উন্নতির লক্ষে গড়ে উঠেছে CINI l সংস্থার পক্ষ থেকে উত্তরবঙ্গের দায়িত্ব প্রাপ্ত আধিকারিক শেখর সাহা  সংস্থার উদ্যেশ্য এবং কাজের বিষয়ে আমাদের প্রতিবেদক কে যা বলেছেন l
সিনি র লক্ষ্য  হলো  পিছিয়ে পড়া শিশু,কিশোর- কিশোরী ও মহিলাদের স্বাস্থ্য -পুষ্টি -শিক্ষা এবং সুরক্ষার স্থায়ী উন্নয়ন। শিশুবান্ধব সমাজ গড়ে তোলা সিনির ভাবনা।
cinni
ডাক্তার সমীর চৌধুরীর হাত ধরে  গড়ে তোলা সংস্থার নাম CINI l এটি ১৯৭৪ সালে সামাজিক পরিবর্তন করার চিন্তা ভাবনা নিয়ে এই পথ চলা শুরু করে  l এই সংস্থার  চারটি প্রধান স্তম্ভ হলো স্বাস্থ্য,নিউট্রিশন ,শিক্ষা এবং নিরাপত্তা জানালেন সিনির পারসন ইনচার্জ শেখর সাহা l তার সাথে কথা বলে জানা যায় এই সংস্থার ৪৫ বছরের জীবন যাত্রা l কাজ করার ক্ষেত্রে বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতা কে  তিনটি ভাগে ভাগ করে তিনি বিস্তারিত আলোচনা করলেন l তিনি জানালেন বর্তমান কালে শিশু এবং মহিলাদের ক্ষেত্রে মূল সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে নিরাপত্তা l তাদের বিশ্বাস  কমিউনিটি এনগেজমেন্ট এবং স্টেকহোল্ডার  এনগেজমেন্ট  করতে পারলে উন্নয়ন সঠিক লক্ষে যাবে  l
shekar
তিনি জানালেন সমাজের সমস্ত সম্প্রদায় তাদের কেন্দ্রবিন্দু না l তাদের প্রধান কারন হলো শিশু অধিকারের ক্ষেত্রে যারা সেবার দায়িত্বে আছে তাদের সাথে মিলে একটা লিংক  তৈরী করা  যাতে একটা সিস্টেম রান হয় এবং তার দ্বারা শিশুদের কল্যাণ হয় l এটাই তাদের মূল উদ্যেশ্য   l সরকার শিশুদের জন্য একটা সুসংহত পরিকল্পনা তৈরী করেছে যার নাম হলো Integrated Child Protection Scheme (ICPS)   l সরকার এর কাছ থেকে তারা চাইছে যাতে এই স্কিম সঠিক ভাবে কার্যকারী হোক  l এই স্কিমের মধ্যে দুই ভাগ আছে তার মধ্যে care & institutNon institutional ional  Care.(নন ইনস্টিটিউশনাল কেয়ার এবং ইনস্টিটিউশনাল কেয়ার ) যা  সুসংহত শিশু সুরক্ষা প্রকল্প ( চাইল্ড প্রটেকশন স্কিম ) যারা নিজের গ্রাম বা নিজের ওয়ার্ডে সারা বছর সুরক্ষা সুনিশ্চিত করে , তারা কর্মী l এই বিষয় তা  ফাংশনাল  হোক সেটা তারা সকলের কাছ  থেকে আশা করছে l আর বাচ্চাদের  জন্য ফস্টার কেয়ার আর এডাপশন  এর ব্যবস্থা করা হোক l তিনি আরো বললেন নিউট্রিশন এবং স্বাস্থ্যর দিক থেকে তারা চাইছেন  আরবান হেলথ মিশনের  প্রত্যেক টি  প্রকল্পের  সুবিধা শিলিগুড়ির ঘিঞ্জি এলাকা তে ও যেন পায়  এবং এই পরিকল্পনা যেন এই বছরই সঠিকভাবে শুরু হয়  l শ্রী শেখর সাহা জানান তাদের সব কাজ প্রতিদিন  দক্ষ ভাবে করার জন্য একটা খরচ আছে l এই খরচের এক অংশ ও যদি সাধারণ মানুষ দান করতে পারে তাহলে সংস্থা  আরো ভালো ভাবে কাজ করতে পারবে  কারণ কেবল সরকারি  সাহায্য দিয়ে এই বিশাল কর্মকান্ডের লক্ষ নিয়ে এগোনো যায়না ,পাশা পাশি সাধারণ জনগণের সাহায্যের  প্রয়োজন হয়ে থাকে l এছাড়া তিনি জানালেন যদি কিছু “গ্রূপ অফ পিপল” এদের জন্য একটি ড্রপিং সেন্টার খোলে তাহলে  তাদের সাথে তারা একসাথে যুক্ত হয়ে কাজ করতে পারবে  l শেষে তিনি বললেন এটি ওয়ান ডে ইভেন্ট না , উন্নয়ন একটা লম্বা প্রক্রিয়া l তাই তিনি সাধারণ মানুষকে বললেন “আমাদের সংস্থায়  আসুন  ,দেখুন,বুঝুন আর যদি কোনো পরিবর্তন করা সম্ভব তাহলে আমাদের সাথে যুক্ত হোন” l
Please follow and like us: